খালিয়াজুরীতে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর বিতরণে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ

Date:

Share post:

সাইফুল আরিফ জুয়েলঃ
ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ঘর নির্মাণের উদ্যোগ নিলেও তাতে অনিয়মের অভিযোগ করেছেন উপকারভোগী ও স্থানীয়রা। এমন অভিযোগ নেত্রকোনার হাওর উপজেলা খালিয়াজুরীতে।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, উপহারের ঘর বিনা খরচে তাদের পাবার কথা। তবে এখন ঘরের মালামাল পরিবহন করতে হচ্ছে নিজ খরচে। এতে তাদের ব্যয় হচ্ছে সাত হাজার তিনশত টাকা করে।

বিষয়টি উল্লেখ করে এর অনিয়ম-দুর্নীতির বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন উপজেলার রোয়াইল গ্রামের রবীন্দ্র সরকারসহ বেশ কয়েকজন।

রবীন্দ্র সরকার, জনু সরকার, প্রজিত চৌধুরীসহ অন্য অভিযোগকারীরা জানান, ইউএনও স্যার আগে বলেছিলেন ঘর নির্মাণে আমাদের কোনো খরচ লাগবে না, সব খরচ সরকার দিবে। এখন ঘরের মালামাল অনেক দূরে এনে ফেলে রাখা হয়েছে। পরিবহনের খরচ আমাদের বহন করতে হচ্ছে। ইউএনও স্যার বললেন পরিবহন খরচ না দিলে ঘর অন্য জায়গায় চলে যাবে। তাই বাধ্য হয়ে কেউ ধার করে, কেউ আবার সুদে টাকা এনে দিয়ে পরিবহন খরচ মিটিয়েছে। কি করব, ঘরতো লাগবে আমাদের যে ঘর নাই। তারা একই এলাকার ৩৩ জন মিলে মালামাল পরিবহন করেছেন। জনপ্রতি সাত হাজার তিনশত টাকা করে ব্যয় হয়েছে বলে জানান তারা।

তাদের অভিযোগ, প্রতি ঘরের জন্য ৫০ বস্তা সিমেন্ট দেওয়া হবে বলা হয়েছিল। এখন ৩৫ বস্তা করে সিমেন্ট দিয়েছে ঘর নির্মাণের জন্য । এমনকি রাজমিস্ত্রিদের খাওয়া দাওয়া নিজেদের করাতে হচ্ছে।

উপকারভোগী হিসেবে নিবন্ধিত তালিকা সূত্র ধরে অনুসন্ধানে জানা যায়, সরকারি অফিসে কর্মরত কর্মচারীদেরও দেয়া হয়েছে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের সরকারি ঘর। খালিয়াজুরী উপজেলা পরিষদে কর্মরত এম এল এস এস পদে মো. হাবিবুর রহমানের জায়গা জমি থাকার পরেও ভূমিহীন ও গৃহহীনের ঘর তার নামে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। একই পদে থাকা মো. মাহবুব মিয়ারও সরকারি ঘর জুটেছে হাওর মালেক সিটিতে। উপজেলা পরিষদে সুইপার পদে চাকরিরত বিকাশ চৌধুরী (ছোট্টো) তার ক্ষেত্রেও একই অবস্থা জায়গা জমি থাকার পরেও তার নিজ নামেই বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে সরকারি ঘর।

পৃতিষ চন্দ্র দাসও সরকারি ঘর পেয়েছেন প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার ব্যক্তিগত অনুরোধে।

অনুসন্ধানে আরো জানা যায় , উপজেলা নির্বাহী অফিসারের (ইউএনও) গরু দেখাশুনা করেন মো: বিল্লাল, আকির মিয়া, তাদেরকেও দেওয়া হয়েছে সরকারি ঘর। উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী অফিসে টেকনিশিয়ান পদে কর্মরত মাসুদ মিয়ার ছেলে সুমন মিয়ার জায়গা জমিসহ বড় ঘর থাকার পরেও তাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর দেওয়া হয়েছে। ইউএনও’র বাসার কাজের মহিলা চায়না আক্তারও সরকারি ঘর পেয়েছেন।

জানতে চাইলে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রাজিব আহমেদ বলেন, অনিয়মের বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা। সবকিছু সঠিকভাবেই দেয়া হচ্ছে।

খালিয়াজুড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এ এইচ এম আরিফুল ইসলাম বলেন, ঘরের জন্য কারো কাছ থেকে টাকা নেয়া হচ্ছে না। ঘরের মালামাল পরিবহনের খরচ তারা নিজেরা বহন করছেন। তবে এই পরিবহন খরচ হাজার দেড়েকের বেশি হওয়ার কথা নয়। উপজেলা চেয়ারম্যান নাম ঠিকানা দেখে দিয়েছেন, ফলে এই প্রকল্পে ঘর বিতরণে কোন ধরণের অনিয়ম হয়নি। একটি চক্র বিভিন্ন অনিয়ম তুলে এ বিষয়টিকে বিতর্কিত করতে চাইছে।

তিনি আরো বলেন, সরকারি অফিসে যারা চাকুরি করেন এমন যে কয়জন ঘর পেয়েছেন তারা সবাই মাস্টার রোলে কর্মরত। তারা দরিদ্র তাই পেতে পারেন। আর চায়না আক্তার আমার বাসায় কাজ করেন না, কারণ আমি পরিবার সহ থাকি না তাই বাসায় কোন কাজের মহিলা নেই। চায়না আক্তার কৃষি অফিসে ঝাড়ুদেন বলে তিনি জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

spot_img

Related articles

ভালুকায় কাভার্ডভ্যান উল্টে ২জন নিহত

কাভার্ড ভ্যান উল্টে নিহত, ভালুকা, ময়মনসিংহ

ভালুকায় পিকাপ গাড়ীসহ চোর চক্রের ৫ সদস্য আটক 

আফরোজা আক্তার জবা, ভালুকা প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের ভালুকায় ২টি চোরাই পিকাপ গাড়ীসহ চক্রের ৫ সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ।...

ভালুকায় ধান ক্ষেত থেকে গৃহবধূর গলাকাটা লাশ উদ্ধার

আফরোজা আক্তার জবা ভালুকা প্রতিনিধিঃময়মনসিংহের ভালুকায় হাজেরা খাতুন(৩৫) নামে এক গৃহবধূর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করেছে ভালুকা মডেল থানা...

ভালুকায় পথচারীদের মাঝে পানি ও স্যালাইন বিতরণ

আফরোজা আক্তার জবা, ভালুকা প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের ভালুকায় প্রচন্ড তাপদাহে মানুষের তৃষ্ণা মেটাতে পথচারীদের মাঝে বিশুদ্ধ পানি ও খাবার...