নালিতাবাড়ীর স্বপ্নে দিঘি সুতানাল পর্যটকদের দৃষ্টি নন্দনের পরিকল্পনার উদ্যোগ

Date:

Share post:

 

নালিতাবাড়ী প্রতিনিধিঃ
নালিতাবাড়ীর ঐতিহাসিক স্বপ্নের দিঘি পর্যটকদের দৃষ্টি নন্দনে আরও সুন্দর পরিবেশে গড়ে তুলতে নৌ-পরিবহন সচিব আব্দুস সামাদ ফারুক উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দিয়েছেন । গত ৫ এপ্রিল স্থানীয় প্রেসক্লাবে সন্ধ্যায় নৌ-পরিবহন মন্ত্রনালয়ের সচিব আব্দুস সামাদ ফারুক এ নির্দেশ দিয়েছেন ।
ঐতিহাসিক কোন দলিল না পাওয়া গেলেও কথিত আছে সামন্ত রাজা রাণীকে ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশের জন্য উপহার দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। রাণী তখন রাজাকে বলেন, ভালবাসার নিদর্শন হিসেবে আপনি এমন কিছু দান করুন যা যুগযুগ ধরে মানুষ মনে রাখে। রাজা তখন সিদ্ধান্ত নিলেন অবিরাম একরাত একদিন সুতা কাটা হবে। যে পরিমান সুতা হবে সেই সুতার সম পরিমান লম্বা এবং প্রশস্ত একটি দিঘি খনন করা হবে। এলাকার জনগণ দিঘির জল ব্যবহার করবে। আর তোমাকে স্বরণ করবে। দিনের পর দিন খননকাজ চলে। নির্মিত হয় বিশাল এক দিঘি। এক পাড়ে দাঁড়ালে অন্য পাড়ের লোক চেনা যায় না। কথিত আছে খননের পর দিঘিতে জল ওঠেনি। জল না ওঠায় সবাই যখন চিন্তিত। কমলারাণি তখন স্বপ্ন দেখেন “গঙ্গাপুজা ও নরবলি দিলে দিঘিতে পানি ঊঠবে ।” স্বপ্ন দেখে রাণি চিন্তিত হয়ে পড়েন এবং নরবলি না দিয়া রাণি গঙ্গামাতাকে খুসি করার জন্য মহাধুমধামে বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে পানি শূণ্য দিঘির মধ্যে গঙ্গাপুজার আয়োজন করা হয়। কথিত ছন্দে পাওয়া যায় কমলারাণি গঙ্গামাতার পায়ে প্রার্থনা জানিয়ে বলেন,“কোন মায়ের বুক করিয়া খালি,তোমারে দিব মাতা নরবলি।আমি যে সšতানের মা,আশায় করিয়া ক্ষমা কোলে তুলিয়া নাও। মা পুর্ণকর তোমার পুজা।” হঠাৎ বজ্রপাতের শব্দে দিঘিতে জল উঠতে লাগলো। লোকজন দৌড়ে পাড়ে উঠতে পাড়লেও দিঘির টইটুম্বুর জলে রাণি তলিয়ে গেলেন। কমলা রাণি আর তীরে উঠতে পাড়েনি। সেই থেকে কমলা রাণি বা সুতানাল দিঘি নামে পরিচিতি পায়।
সেই থেকে সুতানাল,কমলারাণি বা বিরহীনি কয়েকটি নামেই দিঘির নামকরন হয় । তবে এলাকায় সুতানাল পুকুর নামে পরিচিত। শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার কাকরকান্দি ইউনিয়নে মধ্যমকুড়া গ্রামে ৬০ একর জমির উপর দিঘিটি অবস্থিত । উপজেলা সদর থেকে আট কিলোমিটার দুরে দিঘিটির অবস্থান। পরবর্তী সময়ে “নালিতাবাড়ী মাটি মানুষ এবং আমি”সাবেক এমপি ও মন্ত্রী অধ্যাপক আবদুস সালাম রচিত বই থেকে জানাযায়,খ্রিষ্টীয় ত্রয়োদশ শতাব্দিতে শালমারা গ্রামে সশাল নামের এক গাড়ো রাজা রাজত্ব করতেন। সামশ ইলিয়াস শাহ তখন বাংলার শাসন কর্তা। সশাল রাজার রাজধানী ছিল শালমারা গ্রামে । ১৩৫১ সালে তিনি সশাল বিরোদ্ধে সেনা প্রেরন করেন। রাজা পলায়ন করে আশ্রয় নেন জঙ্গলে। পরবর্তীকালে সশাল রাজা শত্রæর আক্রমন থেকে রক্ষা পাওয়ার পর দিঘির মাঝখানে ছোট্র একটি ঘর তৈরি করে দিঘির চারদিকে পরিখার মতো খনন করেন। রাজা যখন সেখানে অবস্থান করতেন তখন তার বাহিনী বড় বড় ডিঙি নৌকা নিয়ে দিঘির চারদিকে পাহাড়া দিত। কালক্রমে, ঐভুখন্ডটি ধসে দিঘিতে রুপনিয়েছে। রাজার শেষ বংশধর ছিলেন রাণি বিরহীনি। দিঘিটি রাণি বিরহীনি নামেও পরিচিতি পায়। ১৯৪০ সালে সরকারী ভুমি জরিপে দিঘিটি বিরহীনি নামেই রেকর্ড হয়েছে। তবে দিঘিটি খননের সত্যিকার দিন,ক্ষন,ইতিহাস জানা যায়নি। তবে দেশের জন্য একটা ঐতিহাসিক নিদর্শন হতে পাড়ে।

দিঘিটি কে কখন কোন উদ্দেশে খনন করেছিলেন তার ইতিহাসনির্ভর কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে এলাকার প্রবীণ লোকদের কাছ থেকে জানা যায়,মোগল আমলের শেষের দিকে এ গ্রামে কোন এক সামন্ত রাজার বাড়ি ছিল। আবার কেউ বলেন এখানে বৌদ্ধ বিহার ছিল। কালের বির্বতনে দিঘির ঐতিহ্য দামাচাপ পরে । ১৯৮৩ সালে এই দিঘিকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠে“সুতানালি দিঘিরপাড় ভুমিহীন মজাপুকুর সমবায় সমিতি।”বর্তমানে সমিতির সদস্য সংখ্যা ১১৮ জন। সব সদস্যই দিঘির পাড়ে বসবাস করেন।ঐতিাসিক এ দিঘিকে কেন্দ্র করে ভুমিহীনদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে দিঘিটি কেন্দ্র করে প্রতি বছর সৌখিন মৎস্য শিকারিদের মিলন মেলায় পরিনিত হয়,দুরদুরান্ত থেকে মৎস্য শিকারী ও উৎসুক মানুষের আনাগোনায় এলাকার পরিবেশ হয়ে ওঠে উৎসব মুখর। এ দিঘির মাছ খুব সুস্বাদু বলে প্রশংসা রয়েছে।

নালিতাবাড়ী ভারতের মেঘালয়ের রাজ্যের সীমান্তবর্তী গারো পাহারের পাদদেশ বাংলাদেশের মধ্য উত্তর সীমান্ত একটি পর্যটন এলাকা । ঐতিহাসিক নিদর্শন সুতানাল দিঘি পর্যটকদের জন্য সুন্দর ও দৃষ্টি নন্দন করার উদ্যোগ নিতে নৌ-পরিবহন সচিব নির্দেশ দিয়েছেন ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

spot_img

Related articles

ভালুকায় কাভার্ডভ্যান উল্টে ২জন নিহত

কাভার্ড ভ্যান উল্টে নিহত, ভালুকা, ময়মনসিংহ

ভালুকায় পিকাপ গাড়ীসহ চোর চক্রের ৫ সদস্য আটক 

আফরোজা আক্তার জবা, ভালুকা প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের ভালুকায় ২টি চোরাই পিকাপ গাড়ীসহ চক্রের ৫ সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ।...

ভালুকায় ধান ক্ষেত থেকে গৃহবধূর গলাকাটা লাশ উদ্ধার

আফরোজা আক্তার জবা ভালুকা প্রতিনিধিঃময়মনসিংহের ভালুকায় হাজেরা খাতুন(৩৫) নামে এক গৃহবধূর গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করেছে ভালুকা মডেল থানা...

ভালুকায় পথচারীদের মাঝে পানি ও স্যালাইন বিতরণ

আফরোজা আক্তার জবা, ভালুকা প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের ভালুকায় প্রচন্ড তাপদাহে মানুষের তৃষ্ণা মেটাতে পথচারীদের মাঝে বিশুদ্ধ পানি ও খাবার...